Header Ads

অ্যাকাডেমি নিয়ে ইস্টবেঙ্গল বাংলায় নজির গড়তে চলেছে



ইনসাইড নিউজ ডেস্ক: যাকে বলে যথার্থ অর্থে প্রতিভা অন্বেষণ। ঠিক সেটাই করে দেখালেন ইস্টবেঙ্গল অ্যাকাডেমির ডিরেক্টর রঞ্জন চৌধুরি। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলা যেমন মেদিনীপুর, বীরভূম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, হুগলির মতো জেলা থেকে বাছাই তরুণ ফুটবল প্রতিভা তুলে আনলেন। তাঁর সঙ্গ দেন প্রাক্তন ফুটবলার চন্দন দাস এবং ষষ্ঠী দুলে। যাঁরা আবার ইস্টবেঙ্গল অ্যাকাডেমির ফুটবল স্কুলের দায়িত্বে। শুধুমাত্র এ রাজ্যের বিভিন্ন জেলাই নয়, ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল থেকেও প্রতিভা খুঁজে আনেন রঞ্জন।

টিএফএ-তে থাকাকালীন রঞ্জন চৌধুরির প্রতিভা তুলে আনার প্রতিভার কথা কারুর অজানা নয়। যাঁর হাত দিয়ে কত কত ফুটবলার উঠে এসেছে আর পরবর্তীকালে দেশের হয়ে কত কত সাফল্য এনে দিয়েছে। ঠিক সেই কাজটাই এখন রঞ্জন করছেন ইস্টবেঙ্গলের হয়ে।

ইস্টবেঙ্গল জুনিয়র দলের কোচ জানিয়েছেন, 'আমার এবার লক্ষ্যই ছিল বাংলার গ্রামকে টার্গেট করা। এ বছর সিনিয়র টিমের খেলা দেখে বুঝেছি যে ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানে বাংলার ফুটবলার না থাকলে কোনওদিনই এগোবে না। বাঙালি ছাড়া এই আবেগ বোঝা দুষ্কর। এবারের আই লিগে যারা ভাল পারফর্ম করেছে তাদের দেখলেই খুব ভাল করে বোঝা যাবে সেটা। মিনার্ভা বা নেরোকাতে নিজেদের রাজ্যের ফুটবলারদের আধিপত্যইই বেশি। আমি চেষ্টা করছি। দেখি কতটা কী করতে পারি।'

তবে এ ব্যাপারে রঞ্জন বিশেষ কৃতিত্ব দিচ্ছেন সুরকুমার, তোম্বা সিংকেও। বাংলা বা ভিন্ন জেলা মিলিয়ে ৬০০০ ফুটবলার ট্রায়ালে আসে। সেখান থেকে ২৫০ জনকে বেছে নেন অ্যাকাডেমি ডিরেক্টর। তাদের ভিন্ন এজ-গ্রুপের অ্যাকাডেমিতে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। যাদের সব দায়িত্ব নেবে ক্লাব।

রঞ্জন আর তাঁর টিমকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা ইনসাইড নিউজের পক্ষ থেকে।

No comments

Powered by Blogger.